বগুড়ার শেরপুরে ভন্ড পীরের আস্তানার ওরশ মাহফিলকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ॥ সংঘর্ষের আশংকা


আবু জাহের, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ
বগুড়ার শেরপুরে গুয়াগাছি গ্রামে আয়নাল পাগলার আস্তানায় ওরশ মাহফিল ও ইসলামী জলসাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। যেকোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের গুয়াগাছি গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে আয়নাল হক(৪৩) দীর্ঘদিন ধরে গাজিপুর জেলার কোনবাড়ি এলাকায় পোশাক কারখানায় চাকরি করে। হঠাৎ করে গত ৩ বছর আগে গ্রামে এসে নিজেকে পীর বলে দাবি করে এবং তার বাড়ির পাশে গুয়াগাছি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্নে একটি ভুয়া মাজার শরীফ তৈরী করে। এমতাবস্থায় ১৪ মার্চ ২০১৭ তারিখে একটি ওরশ মাহফিলের আয়োজন করে। এতে শেরপুর-ধুনটের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাবিবর রহমানকে প্রধান অতিথি করে পোষ্টার ও দাওয়াত পত্র দিয়ে মাহফিলের প্রচার চালানোকালে এলাকার সচেতন মহল এতে বাধা দেয়। এ ধরনের গাঁজাখুরে মাহফিল ও ভুয়া মাজার প্রতিষ্ঠা করে এলাকায় কোন প্রকার নেশার আস্তানা গড়ে তুলতে দেয়া হবেনা বলে এলাকাবাসী জানান।
এ ব্যাপারে পিয়ার আলী, মোস্তাফিজার, জাহিদুল ইসলামসহ এলাকাবাসী জানায়, সপ্তাহের প্রতি বুধবার এই ঘরে কয়েকজন সাধু সন্যাসীবেশী আয়নালের সহযোগি হালকা-জিকির করে আর গাঁজা সেবন করে। এরা যদি এই ভন্ডামী বন্ধ না করে তাহলে আমরা আস্তানা ভেঙ্গে দেব।
এ ব্যাপারে ভন্ডপীর আয়নাল পাগলার ভাই আলামিন হোসেন জানায়, এখানে কোন মাজার নেই। আমার ভাই কোন পীর নয়। সে গার্মেন্টেসে ৮ বছর হলো চাকরী করে। তবে মাঝে মধ্যে এলাকায় এসে এই ঘরে বসে কয়েকজন মিলে গাঁজা খায়।
এ ব্যাপারে শেরপুর-ধুনটের সংসদ সদস্যের পিএস কোরবান আলী মিলন বলেন, এমপি মহোদ্বয়কে এই ওরশ মাহফিলে প্রধান অতিথি করেছে এটা আমরা জানিনা। এছাড়াও আমাদের সাথে এ বিষয়ে কোন আলোচনাও করা হয়নি।
এ ব্যাপারে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বুলবুল ইসলাম বলেন, এ ধরনের ঘটনা ওই এলাকার কেউ আমাদের জানায়নি। তবে সত্যিই এধরনের ঘটনা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *