বগুড়ার শেরপুরে চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের দ্বন্দ্বে অতিদরিদ্ররা ১৫ লাখ টাকা থেকে বঞ্চিত!


আবু জাহের, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ
বগুড়ার শেরপুর উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বরদের দ্বন্দ্বের কারণে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির আওতায় প্রথম পর্যায়ের ৪০ দিনের ১৫ লাখ টাকা ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রকল্প তৈরি করে সঠিক সময়ে কাজ না করায় উপজেলা প্রশাসন এমন উদ্যোগ নিয়েছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবাায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) কার্যালয়সূত্র জানায়, অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির আওতায় মোট ১ হাজার ৮শ’ ৩০জন উপকারভোগীর বিপরীতে শেরপুরে উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নে ১ কোটি ৩০ লাখ ১৬ হাজার টাকা বরাদ্দ আসে।
এর মধ্যে ১শ’ ৭৩জন উপকারভোগীর অনুকূলে ১৫ লাখ ৯ হাজার ২০ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয় শাহবন্দেগী ইউনিয়নে। প্রকল্পের শর্তানুযায়ী গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে চলতি মার্চ মাসের ১০ তারিখের মধ্যে ৪০ দিনের প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ করার কথা। কিন্তু শাহবন্দেগী ইউনিয়নে এখনো প্রকল্প তৈরী করতে পারেনি। তাই নিয়ম মেনে উক্ত প্রকল্পের টাকা ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।
চেয়ারম্যান আল আমিন মন্ডল জানান, মেম্বারদের অসযোগিতার কারণে অনেক উন্নয়নকাজ বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে না। তাদের কাছে ধনী-গরীব বলে কিছুই নেই। সবকিছুতেই ভাগ বসাতে চান তারা। এসব কারণে সময়মত উক্ত প্রকল্প তৈরি করা যায়নি। শাহবন্দেগী ইউনিয়নের মেম্বার মাহমুদুল হাসান লিটন জানান, তিনিসহ অন্য মেম্বাররা কোনো অনিয়ম বা দুর্নীতির সাথে নেই। চেয়ারম্যান নিয়মিতভাবে পরিষদে আসেন না। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে স্বাক্ষর করেন না। এতে বিভিন্ন ধরণের সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষজনও ক্ষিপ্ত। সবকিছুই চলে তার মর্জিমাফিক। এ কারণে প্রকল্প তৈরি করা যায়নি।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) শামছুন্নাহার শিউলি জানান, প্রকল্প তৈরী করে দেওয়ার জন্য বারবার চেয়ারম্যানসহ মেম্বারদের বলা হয়েছে। কিন্তু নিজেদের মধ্যে বিরোধের কারণে তারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজটি করতে পারেননি। তাই উপকারভোগীদের নামে আসা বরাদ্দকৃত টাকা ফেরত পাঠানো ছাড়া আপতত কোন পথ খোলা নেই বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *