ব্রেকিং নিউজ

নাটোরে কৃষি জমি নষ্ট করে পুকুর খননের দায় ১ লাখ টাকা জরিমানা

 নাটোর প্রতিনিধি.

নাটোরের বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলায় কৃষি আবাদি জমি নষ্ট করে অধিক টাকা লাভের আশায় পুকুর খননের দায়ে দুইজনকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর পর এই জরিমানা ঘোষণা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদনান মাহমুদ। জরিমানার মধ্যে বড়াইগ্রাম উপজেলার নওদা জোয়ারী এলাকার খোরশেদ আলম কে ৫০ হাজার এবং গুরুদাসপুর উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের রায়পুর কালিবাড়ি এলাকায় সামাদকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে ।

জেলা প্রশাসক শাহরিয়াজ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মঙ্গলবার সকাল ১১ টা থেকে বড়াইগ্রাম এবং গুরুদাসপুর উপজেলায় কৃষি জমি রক্ষায় পুকুর খনন বন্ধে অভিযান শুরু করা হয়। জেলা প্রশাসক শাহরিয়াজ অভিযানে নেতৃত্ব দেন। নওদা জুয়াড়ি এলাকার খোরশেদ আলম কে কৃষি জমি নষ্ট করে পুকুর খননের দায়ে আটক করা হয়।

অপরদিকে গুরুদাসপুর উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের রায়পুর কালীবাড়ি এলাকায় তিন ফসলি কৃষিজমি নষ্ট করে পুকুর খননের দায় সামাদকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদনান মাহমুদ দুইজনকে লাখ টাকা জরিমানা প্রদান করেন। এর আগে চাপিলা ইউনিয়ন পরিষদে কৃষি জমি রক্ষায় পুরো খনন বন্ধে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় স্থানীয় কৃষকরা জানান, একশ্রেণীর স্বার্থবাদী মানুষ অধিক লাভের আশায় কৃষি জমি নষ্ট করে একের পর এক পুকুর খনন করে চলেছেন। এতে বর্ষাকালে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয় মানুষের চলাচলের রাস্তা এবং বাড়িঘরে পানি উঠছে।

এছাড়া দিনমজুররা বেকার হয়ে জীবিকা নির্বাহ নিয়ে পড়ছেন চরম সমস্যায়। এ সমস্যা সমাধানে পুকুর খনন বন্দে অবিলম্বে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন কৃষকরা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক শাহরিয়াজ কৃষকদের আবেদন আমলে নিয়ে সকল প্রকার পুকুর খনন বন্ধ ঘোষণা করেন। একের সুবিধার জন্য সৎ মানুষকে বিপদে ফেলা যাবে না দাবি করে জেলা প্রশাসক জানান, আইন অমান্য করে যারা পুকুর খনন করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে জেলা প্রশাসন।

এক্ষেত্রে স্থানীয়ভাবে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং পুকুর খনন কারীদের সম্পর্কে তথ্য দেওয়ার জন্য তিনি সকলকে আহ্বান জানান।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *