গাবতলীর সংঘর্ষে ১৩০০ জনকে আসামি করে আরও ২ মামলা

বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর দারুস সালাম থানায় ১৩০০ জনকে আসামি করে এ দুটি মামলা করেন এসআই মাসুদ মিয়া।

এসআই নওশের আলী ভূইঞা মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নতুন দুই মামলার একটি সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনায় থানার এসআই মাসুদ মিয়া বাদী হয়ে করেছেন। মামলায় ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয় আরও চারশ থেকে পাঁচশ জনকে আসামি করা হয়েছে।

“আর সংঘর্ষের মধ্যে শ্রমিক নিহতের ঘটনায় হত্যার অভিযোগে দ্বিতীয় মামলা করেছেন এসআই এলিট মাহমুদ। এ মামলায় কারও নাম উল্লেখ না করে অজ্ঞাত পরিচয় সাতশ থেকে আটশ জনকে আসামি করা হয়েছে। ”

ওইদিনের ঘটনায় এ পর্যন্ত পাঁচটি মামলা হয়েছে জানিয়ে এসআই নওশের আলী বলেন, এর মধ্যে চারটি মামলার বাদী পুলিশ; আর একটির বাদী এক নারী।

আগের তিন মামলার দুটি দারুস সালাম থানার এসআই মো. জুবায়ের ও এসআই বিশ্বজিৎ পাল বাদী হয়ে দায়ের করেন। অন্য মামলাটি করেন ফেরদৌসী (৩০) নামের মোহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্দা এক নারী।

প্রথম তিন মামলায় আন্তঃজেলা ট্রাক চালক ইউনিয়ন নেতাসহ ৪৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরও ১২০০ জনকে আসামি করা হয়।

দুই চালকের সাজার রায়ের প্রতিবাদে মঙ্গলবার সকাল থেকে সারা দেশে পরিবহন ধর্মঘট শুরুর পর মঙ্গলবার রাতে পরিবহন শ্রমিকরা ঢাকার গাবতলীতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায়। রাতভর দফায় দফায় বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের পর বুধবার সকালে দুই পক্ষের সংঘর্ষ নতুন মাত্রা পায়। এক পর্যায়ে আমিন বাজার সেতুর দক্ষিণ দিক থেকে মাজার রোডের প্রবেশ মুখ পর্যন্ত পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

এ সময় সংবাদ মাধ্যমে গাড়ি, পুলিশের রেকারসহ বিভিন্ন যানবাহন হামলা ও ভাংচুরের শিকার হয়। সংঘর্ষের আহত এক শ্রমিক পরে হাসপাতালে মারা যান।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *