উচ্চ আদালতে আপিল করবে সিফাতের পরিবার

২৪নিউজ৭১ ডেক্সআত্মহত্যার প্ররোচনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী ওয়াহিদা সিফাতের মৃত্যুর মামলায় তার স্বামী আসিফের ১০ বছরের কারাদণ্ডের রায়ে সন্তুষ্ট নয় সিফাতের পরিবার।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ন্যায় বিচারের জন্য উচ্চ আদালতে আপিল করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন সিফাতের বাবা আমিনুল ইসলাম খন্দকার।

আমিনুল ইসলাম বলেন, আসিফ লন্ডনে পড়াশোনার কথা বলে সিফাতকে বিয়ে করে। পরে সেটা জানাজানি হলেও আসিফ নিজেকে না শুধরিয়ে বরং ব্যবসার জন্য আমাদের কাছে ২০ লাখ টাকা চায়। টাকা দিতে অস্বীকার করলে সিফাতের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে। এর বেশ কিছুদিন পর সিফাত মারা যায়। সিফাতের ওপর শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করতো তার স্বামী। সিফাত যেদিন মারা যায় সেদিন আমরা খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে শ্বশুরপক্ষের কাউকেই পাইনি। সিফাতের নাকে-মুখে প্রচুর রক্ত দেখি, থুতনি ও মাথার পেছনে বড় জখম দেখে বুঝতে পারি সিফাতকে হত্যা করা হয়েছে।

আদালতের রায়ের বিষয়ে তিনি বলেন, মামলার শুনানিকালে আসামিপক্ষ সিফাত আত্মহত্যা করেছে বলে কোনও স্বাক্ষ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেনি। এছাড়া সিফাতকে হত্যা করা হয়েছে এমন সকল তথ্যপ্রমাণ আদালতে পেশ করা হলেও রায়ে আত্মহত্যার প্ররোচণার দায়ে স্বামী আসিফকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। অপর তিনজন আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে। এ রায়ে আমরা সন্তুষ্ট নই। রায়ের কপি হাতে পেলেই আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ২৯ মার্চ সন্ধ্যায় রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাগান এলাকায় আইনজীবী হোসেন মোহাম্মদ রমজানের বাড়িতে রহস্যজনক মৃত্যু হয় গৃহবধূ ওয়াহিদা সিফাতের। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *